রাখে কৃষ্ণা মারে কে! ফিরতি ডার্বিতে SC ইস্টবেঙ্গলকে ৩-১ গোলে উড়িয়ে দিল ATK মোহনবাগান

রাখে কৃষ্ণা মারে কে! ফিরতি ডার্বিতে SC ইস্টবেঙ্গলকে ৩-১ গোলে উড়িয়ে দিল ATK মোহনবাগান

নজরবন্দি ব্যুরো: রাখে কৃষ্ণা মারে কে! প্রথম ডার্বিতে ২-০ গোলে জিতেছিল এটিকে মোহনবাগান । আর ফিরতি ডার্বিতে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী এসসি ইস্টবেঙ্গলকে ৩-১ গোলে হারাল হাবাসের ছেলেরা। একটি গোল করে এবং দুটি গোল করিয়ে ম্যাচের নায়ক স্বভাবতই রয় কৃষ্ণ। রয় কৃষ্ণা, ডেভিড উইলিয়ামস ও জাভি হার্নান্ডেজের গোলে জেতে এটিকে মোহনবাগান। অপরদিকে লাল-হলুদ শিবিরের পক্ষে একমাত্র গোলটি তিরির আত্মঘাতী।

আরও পড়ুনঃ অবসাদ আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি, সাক্ষাৎকারে বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি ক্যাপ্টেন কোহলির

একদিকে, লিগ টেবিলের শীর্ষে থাকা দল। অন্যদিকে, নবম স্থানের ইস্টবেঙ্গল। তবে ডার্বি বলেই ফেভারিট কেউ ছিল না। ম্যাচের স্কোরলাইন যতই একপেশে লাগুক না কেন, তা মোটেই হল না। ইস্টবেঙ্গল এদিন রীতিমত চ্যালেঞ্জ ছুড়ল হাবাসের ছেলেদের। তবে ম্যাচের বস যে হাবাস তা আরো একবার প্রমাণ কবলেন আন্তোনিও লোপেজ হাবাস। আর  এর ফলে চুরমার ইস্টবেঙ্গলের ডার্বি জয়ের স্বপ্ন।

রাখে কৃষ্ণা মারে কে! আর এটিকে-মোহনবাগান পাঁচ পয়েন্টে এগিয়ে গিয়ে অনেকটা পিছনে ফেলল দ্বিতীয় স্থানে থাকা মুম্বই সিটি এফসিকে। খেতাবের দৌড় শুরু করে দিলেন হাবাসের ছেলেরা। পরপর ছয়টি ম্যাচে গোল করলেন রয় কৃষ্ণ। তিনি এই কৃতিত্ব দেখিয়ে স্পর্শ করলেন এলানোকে।  প্রথমার্ধের ১৫ মিনিটেই এগিয়ে যায় এটিকে মোহনবাগান। তিরির বাড়ানো পাস থেকে গোল করে দলকে লীড এনে দেন গোল মেশিন রয় কৃষ্ণা। প্রথমার্ধের ৪১ মিনিটে এসসি ইস্টবেঙ্গল সমতা ফিরে পায়। আত্মঘাতী গোল করে বসেন এটিকে মোহনবাগানের তিরি।

১-১ ব্যবধানে প্রথমার্ধ শেষ হলেও দ্বিতীয়ার্ধে লাল-হলুদদের চেপে ধরে সবুজ মেরুনরা। ৭২ মিনিটে রয় কৃষ্ণার বাড়ানো পাস থেকে মোহনবাগানের হয়ে দ্বিতীয় গোলটি করেন অস্ট্রেলিয়ান ফরোয়ার্ড ডেভিড উইলিয়ামস। সবুজ মেরুন শিবিরে তাদের তৃতীয় তথা শেষ গোলটি আসে নির্ধারিত ৯০ মিনিটের পর যোগ করা অতিরিক্ত সময়ে। এবারও পাস বাড়ান কৃষ্ণা। আর নিখুঁত পাস থেকে দুরন্ত গোল করে এসসি ইস্টবেঙ্গলের কফিনে শেষ পেরকটি পুঁতে দেন জাভি হার্নান্ডেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x