দেবীপক্ষেও অব্যাহত চাকরিপ্রার্থীদের অনশন, গান্ধী মুর্তির পাদদেশে অবস্থান হবু শিক্ষকদের।

দেবীপক্ষেও অব্যাহত চাকরিপ্রার্থীদের অনশন, গান্ধী মুর্তির পাদদেশে অবস্থান হবু শিক্ষকদের।
দেবীপক্ষেও অব্যাহত চাকরিপ্রার্থীদের অনশন, গান্ধী মুর্তির পাদদেশে অবস্থান হবু শিক্ষকদের।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ সেন্ট্রাল পার্ক গেট নং ৫ এর সামনে ১৮৭ দিনের দীর্ঘ অবস্হান বিক্ষোভ ও রিলে অনশনের পর দেবীপক্ষেও অব্যাহত চাকরিপ্রার্থীদের অনশন। গান্ধীমূর্তির পাদদেশের কাছে নতুন করে শুরু হয়েছে এস এস সি মেধাতালিকাভুক্ত বঞ্চিত প্রার্থীদের অনশন। ২০১৬ সালে স্কুল সার্ভিস কমিশন কর্তৃক নবম-দ্বাদশ স্তরের শিক্ষক নিয়োগের যে পরীক্ষা হয়; সেখানে নাম্বার ভিত্তিক মেধাতালিকা না প্রকাশ; রেশিও মেনে নিয়োগ না করা।

আরও পড়ুনঃ ষষ্ঠীতেও ঊর্ধ্বমুখী পেট্রল-ডিজেলের মূল্য, উৎসবের আবহে নাভিশ্বাস সাধারণের।

মেধাতালিয়ায় অপেক্ষাকৃত পেছনের সারির প্রার্থীকে আগে নিয়োগ ; এস এম এসে দুর্নীতি প্রভূত কারণে প্রথম দফায় ডাক পাওয়া সুপরিকল্পিতভাবে বঞ্চিত প্রার্থীদের ২০১৯ সালে যে ২৯ দিনের দীর্ঘ অনশন হয়; সেখানে মুখ্যমন্ত্রী দুর্নীতি সম্পর্কে অবগত হয়ে মেধাতালিকাভুক্ত বঞ্চিত সকল প্রার্থীর চাকরী সুনিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা বাস্তবায়িত হয়নি। বরং অকৃতকার্য রাও চাকরী পেয়েছে।

দুর্নীতির প্রতিবাদস্বরূপ আরো একবার মহামান্য উচ্চ আদালতের অনুমতি নিয়ে সল্টলেক সেন্ট্রাল পার্কের নিকট ২০২১ এর জানুয়ারীতে শীত, ঝড়, মহামারীর প্রচণ্ডতা কে উপেক্ষা করে ১৮৭ দিনের যে দীর্ঘ অনশন ও অবস্হান বিক্ষোভ হয় ন্যায্য চাকরীর দাবীতে মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ণের উদ্দেশ্যে। বঞ্চিত দের দাবীর যথার্থতা বিচার করে শিক্ষামন্ত্রী ও এস এস সি এর চেয়ারম্যান সাংবাদিক সন্মেলন করে বঞ্চিতদের ন্যায্য চাকরী সুনিশ্চিত করার আশ্বাস দেন ও ৪০ দিন সময় চাইলেও সেই সময়কাল এর পর ও মেধাতালিকাভুক্ত অথচ দুর্নীতির কারণে সুপরিকল্পিত ভাবে বঞ্চিত প্রার্থীদের এখন ও কোনো সুবিচার মেলেনি।

দেবীপক্ষেও অব্যাহত চাকরিপ্রার্থীদের অনশন

দেবীপক্ষেও অব্যাহত চাকরিপ্রার্থীদের অনশন, গান্ধী মুর্তির পাদদেশে অবস্থান হবু শিক্ষকদের।
দেবীপক্ষেও অব্যাহত চাকরিপ্রার্থীদের অনশন, গান্ধী মুর্তির পাদদেশে অবস্থান হবু শিক্ষকদের।

অভিযোগ, আজ যেখানে শিক্ষকের অভাবে সরকারী স্কুল বন্ধের উপক্রম। সেখানে ন্যায্য চাকরী চাইতে গিয়ে মেধাতালিকাভুক্ত বঞ্চিতদের উপর চলছে পুলিশের অত্যাচার। মিথ্যা কেস দিয়ে চলছে ন্যায্য অধিকারের দাবীকে দমিয়ে রাখার অদম্য প্রয়াস। আন্দোলনকারী কুদরতি কবির, অভিষেক সেন, ইলিয়াস বিশ্বাস, মোয়াজ্জেম হোসেন, আবু নাসের, মিঠুন বিশ্বাস, তৃণা হালদার, পলাশ মন্ডলরা জানিয়েছেন, মেধাতালিকাভুক্ত বঞ্চিত প্রার্থীরা এখনও সততার কান্ডারী মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতির উপর চরম ভরসা রেখেই বিদ্যালয়ে শিক্ষাদানের মাধ্যমে সমাজ গড়ার কারিগরের আংশীদার হওয়ার অপেক্ষার প্রহর গুনছে। তার প্রেক্ষিতেই ন্যায্য চাকরীর দাবীতে তাদের ফের অনশনে বসা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here