হিন্দুদের অস্তিত্ব রক্ষায় দু-তিন সন্তানের জন্ম দিন, বিতর্কিত বার্তা বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেতার!

হিন্দুদের অস্তিত্ব রক্ষায় দু-তিন সন্তানের জন্ম দিন, বিতর্কিত বার্তা বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেতার!
হিন্দুদের অস্তিত্ব রক্ষায় দু-তিন সন্তানের জন্ম দিন, বিতর্কিত বার্তা বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেতার!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ ভারতীয় জনতা পার্টির ‘সাক্ষী মহারাজ’ বলছেন, প্রতিটি হিন্দু রমণীর অন্তত চারটি করে সন্তান প্রসব করা উচিত। বিজেপি নেত্রী ‘সাধ্বী প্রাচী’ও তা-ই মনে করেন। ইতিমধ্যে তিনি উত্তর ভারতে সভা করে মঞ্চে ডেকে এ ধরনের দশপ্রসবিনী মহিলাদের পুরস্কৃতও করছেন। বীরভূমের বিজেপি নেতা শ্যামল গোস্বামীর মতে সংখ্যাটা হওয়া উচিত পাঁচ। আর এবার হিন্দুদের অস্তিত্ব রক্ষায় দু-তিন সন্তানের জন্ম দিন, এই বার্তা দিলেন এক বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেতা।

আরও পড়ুনঃ মকর সংক্রান্তির সকালে গঙ্গাসাগরে জনজোয়ার, দেখুন পুণ্যস্নানের ছবি

মধ্যপ্রদেশের খাণ্ডওয়াতে একটি যুব সম্মেলনের আয়োজন করে ভিএইচপি ও বজরং দল। সেই সভাতেই বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভিএইচপি নেতা মিলিন্দ পারান্ডে। তিনি বলেছেন, হিন্দু জাতি অস্তিত্ব সংকটে পড়বে যদি হিন্দুরা দুই থেকে তিনটি সন্তানের জন্ম না দেন। তাঁর কথায়, “বিয়ের পর প্রত্যেক হিন্দু যুবকের সন্তান জন্ম নিয়ে ভাবা উচিত। প্রত্যেকের কম করে দুই থেকে তিনটি সন্তানের পিতা হওয়া উচিত। হিন্দু সমাজ সংকটে পড়বে যদি হিন্দু জনসংখ্যা কমে যায়।”

মুসলিমদের সাথে হিন্দুদের তুলনা করে মিলিন্দ বলেন, “যখন মুসলিমদের সংখ্যা বাড়ছে, তখন হিন্দুদের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। যা ভবিষ্যতে বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে হিন্দুদের জন্য।” ইংরেজি শিক্ষা বা আধুনিক শিক্ষা ব্যাবস্থা নিয়েও তোপ দেগেছেন এই ভিএইচপি নেতা। তাঁর মতে, ব্রিটিশরা আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে কলুষিত করেছে। আর সেই শিক্ষাকে অনুসরণ করছে এই সমাজ যা ঠিক নয়।

হিন্দুদের অস্তিত্ব রক্ষায় দু-তিন সন্তানের জন্ম দিন, বিতর্কিত বার্তা বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেতার!

হিন্দুদের অস্তিত্ব রক্ষায় দু-তিন সন্তানের জন্ম দিন, বিতর্কিত বার্তা বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেতার!
হিন্দুদের অস্তিত্ব রক্ষায় দু-তিন সন্তানের জন্ম দিন, বিতর্কিত বার্তা বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেতার!

যদিও এই নেতা ২-৩ সন্তানের জন্মদেওয়ার কথা বলেছেন, সেটা এক প্রকার কমই! তাঁর আগে বদ্রিকাশ্রমের শংকরাচার্য বাসুদেবানন্দ সরস্বতীর নিদান, চার-পাঁচটায় থামলে হবে না, প্রত্যেক হিন্দু মহিলাকে অন্তত দশটি করে সন্তান উৎপাদন করতে হবে। কারণ, তা না হলে দেশে হিন্দুদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা রক্ষা করা যাবে না!!! মুসলিমরা এক দিন এ দেশে সংখ্যাগরিষ্ঠ হয়ে যাবে, এই কাল্পনিক শঙ্কার ভিত্তিতেই হিন্দুত্ববাদীদের এমন নিদান।