তৃণমূলের দলীয় কার্যালয় দখলকে কেন্দ্র করে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠল দিনহাটা

তৃণমূলের দলীয় কার্যালয় দখলকে কেন্দ্র করে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠল দিনহাটা

নজরবন্দি ব্যুরো: তৃণমূলের দলীয় কার্যালয় দখলকে কেন্দ্র করে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠল দিনহাটার ওকড়াবাড়ি । বোমাবাজি চলে বলে অভিযোগ। জানা গিয়েছে, রবিবার দিনহাটা ১ ব্লকের ওকড়াবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের একটি দলীয় কার্যালয় দখল নিয়েই দুই পক্ষের মধ্যে ব্যাপক ঝামেলা বাধে। দলীয় সূত্রে খবর, গত ১ জানুয়ারি ওই এলাকায় শাসক দলের কোন্দলের জেরে ভাংচুর হয় তৃণমূল কংগ্রেসের ওকড়াবাড়ির দলীয় কার্যালয়।

আরও পড়ুনঃ ৪৮ ঘন্টার সফরে অন্তত ২৪ টি বৈঠক অভিষেক-পিকের

এদিন সন্ধ্যায় তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয়টি মেরামত করে পুনরায় চালু করতে গেলে পুলিশের উপস্থিতিতেই দুই পক্ষের মধ্যে ব্যাপক বচসা বাঁধে। এর জেরে তৃণমূলের সিতাই বিধানসভার বিধায়ক ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিতদের বিরুদ্ধে আঙ্গুল তোলে তৃণমূলের দিনহাটা ১ ব্লক সভাপতির গোষ্ঠী। অভিযোগ, এলাকা জুরে দুই পক্ষের বোমা বাজি হয়। এরই মধ্যে এলাকার ব্যাবসায়িরা দোকানপাট পাট বন্ধ করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে।

এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে দিনহাটা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক মানবেন্দ্র দাশ ও দিনহাটা থানার আই সি সঞ্জয় দত্তর নেতৃত্বে বিরাট পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান রেনুকা খাতুন বলেন, গত ১লা জানুয়ারি তৃণমূলের দিনহাটা ১ ব্লক সভাপতির নির্দেশে দলীয় কার্যালয় ভাংচুর করে একদল দুষ্কৃতী। এদিন ফের এলাকায় উত্তেজনা ছড়ানোর জন্য দলেরই দিনহাটা ১ ব্লক সভাপতি প্রসন্ন দেব শর্মার নির্দেশে ও তৃণমূল কংগ্রেসের স্থানীয় নেতা মোশারফ হোসেনের নির্দেশে এলাকায় ব্যাপক বোমাবাজি হলো ।

তিনি আরও বলেন, দলে থেকে দল বিরোধী কাজ কর্ম করছেন দিনহাটা ১ ব্লক সভাপতি প্রসন্ন দেব শর্মা সহ বেশ কয়েক জন । যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে দিনহাটা ১ ব্লক সভাপতি প্রসন্ন দেব শর্মা বলেন, এদিন দলীয় স্তরের কোন অনুষ্ঠানই ছিল না। ওই এলাকার দলীয় কর্মীরা ওকড়াবাড়ির দলীয় কার্যালয় টি মেরামত করে বসতে গিয়েছিলো। আমি অসুস্থ্য থাকায় এই বিষয় তেমন কিছুই জানি না।

প্রসন্ন দেব শর্মা আর বলেন, স্থানীয় প্রধান নির্দলে জয়ী হয়ে দলে এসেছে। তাই তিনি দলের মর্ম বোঝেন না। আমি দীর্ঘদিনের তৃণমূলের সৈনিক । পাশাপাশি দিনহাটা ১ ব্লক সভাপতি স্থানীয় প্রধানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন। অন্যদিকে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় বিধায়ক জগদীশ চন্দ্র বর্মা বসুনিয়া বলেন, এই বিষয় আমার কিছুই জানা নেই। আমি দলীয় পথ সভা নিয়ে ব্যাস্ত ছিলাম । ঘটনার জেরে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা রয়েছে। এলাকাটি বিরাট পুলিশ ও র‍্যাফ বাহিনী ঘিরে রেখেছে বলে জানা গিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x