রাহুলের সঙ্গে সাক্ষাৎ, লালঝান্ডা ছেড়ে কানহাইয়ার কংগ্রেস যোগ কেবল সময়ের অপেক্ষা!

রাহুলের সঙ্গে সাক্ষাৎ, লালঝান্ডা ছেড়ে কানহাইয়ার কংগ্রেস যোগ কেবল সময়ের অপেক্ষা!
রাহুলের সঙ্গে সাক্ষাৎ, লালঝান্ডা ছেড়ে কানহাইয়ার কংগ্রেস যোগ কেবল সময়ের অপেক্ষা!

নজরবন্দি ব্যুরোঃ রাহুলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন কানহাইয়া কুমার, গত দিন কয়েক ধরে দেশের রাজনীতিতে জোর চর্চা হয়েছিল সম্ভাব্য এই ঘটনাকে নিয়ে। কেউ কেউ উড়িয়ে দিয়েছিলেন, কেউ কেউ বলেছিলেন রাজনীতির ময়দানে অসম্ভব নয় কিছুই। সেসব আলোচনা, চর্চা জল্পনার পালে হাওয়া দিয়ে সাক্ষাৎ হয়েছে রাহুল-কানহাইয়ার।

আরও পড়ুনঃ মেয়াদ শেষের ৫ বছর আগেই ইস্তফা, কারন দর্শাতে অভিষেককে চিঠি অর্পিতার

তাতে কানহাইয়ার হাতের হাত ধরার জল্পনা আরও কয়েকগুন বেড়েছে দেশের রাজনীতিতে। ছাত্র আন্দোলনের মুখ, মানুষের মন ছুঁয়ে যাওয়া কানহাইয়া প্রবল জনপ্রিয়তা পেলেও ২০১৯ এর ভোটে সেই জনপ্রিয়তার কোন ছাপ খুঁজে পাওয়া যায়নি। আর তার পর থেকেই প্রচারের আলো থেকে সাময়িক সরে ছিলেন তিনি। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন দু বছরের গ্রাফে রাজনীতির ছাত্র আন্দোলনের পিক পয়েন্ট থেকে সরে বেশ অনেকটা ব্যাকফুটে রিয়েছেন বাম ছাত্র নেতা।

15kanhaiya

কানহাইয়ার ঘনিষ্ঠ মহল থেকেও শোনা গিয়েছে, এই মূহুর্তে আর সিপিআই এর সঙ্গে বনিবনা হচ্ছে না জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের প্রাক্তন সভাপতির।  চাইছেন এবার রাজনীতিতে নতুন ইনিংস শুরু করতে। অন্যদিকে এই মুহুর্তে নতুন তরুণ মুখ খুঁজছে কংগ্রেস। তরুণ তুর্কীদের ওপর ভর করেই তৈরি হবে হাতের ২৪ এর যুদ্ধনীতি। আর সব নিয়ে জল্পনাতেই দুইয়ে দুইয়ে চার মিলিয়েছিলেন অনেকে। সেই জল্পনার পালে হাওয়া দিয়েছে উভয়ের সাক্ষাৎ।

লালঝান্ডা ছেড়ে তেরঙ্গা ধরবেন কানহাইয়া! রাহুলের সঙ্গে সাক্ষাৎ-এ বাড়ছে জল্পনা। 

navbharat times

তবে কানহাইয়ার দল বদলের সম্ভাবনা, আলোচনা প্রসঙ্গে সিপিআই-এর সাধারণ সম্পাদক ডি রাজা বলেছেন, ‘‘আমি কেবল এটুকুই বলতে পারি যে চলতি মাসে দলের জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কানহাইয়া। তিনি সেখানে বক্তব্যও রেখেছিলেন।’’ কিন্তু দলের অন্দরে কান পাতলেই শোনা যায় গত দিনে ধীরে ধীরে সিনিয়ন নেতাদের সঙ্গে কাজের পদ্ধতি সহ একাধিক ইস্যুতে দূরত্ব বেড়েছে বাম ছাত্র নেতার। এদিকে কংগ্রেস সূত্রের খবর কানহাইয়া দলে এলে বিহার ভোটে তাঁকে তুরুপের তাস হিসেবে ব্যাবহার করবে কংগ্রেস।

5e5d3a91230000d90fddddb1

শুধু কানহাইয়া নয়, জল্পনা রয়েছে গুজরাটের বিধায়ক জিগনেশ মেবানিকে নিয়েও। গুজরাটের গত বিধানসভা ভোটে নির্দল প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়ে ভোট জিতে বিধায়ক হয়েছেন তিনি। সেই সময়ে অংগ্রেসের সাহায্য পেয়েছিলেন। সূত্রের খবর তিনিও যোগাযগ করেছেন কংগ্রেসের নেতাদের সঙ্গে। সব ঠিক থাকলে এবার সরকারি ভাবে এবং পাকাপাকি ভাবে হাতের হাত ধরবেন গুজরাটের এই বিধায়ক।

 

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here