ভয়ঙ্কর রূপ নিচ্ছে সেকেন্ড ওয়েভ, করোনা রুখতে ফের নয়া নির্দেশিকা জারি কেন্দ্রের।

ভয়ঙ্কর রূপ নিচ্ছে সেকেন্ড ওয়েভ, করোনা রুখতে ফের নয়া নির্দেশিকা জারি কেন্দ্রের।
ভয়ঙ্কর রূপ নিচ্ছে সেকেন্ড ওয়েভ, করোনা রুখতে ফের নয়া নির্দেশিকা জারি কেন্দ্রের।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ ভয়ঙ্কর রূপ নিচ্ছে সেকেন্ড ওয়েভ, করোনা রুখতে ফের নয়া নির্দেশিকা জারি কেন্দ্রের। ক্রমশ বেলাগাম হচ্ছে করোনা ভাইরাসের সেকেন্ড ওয়েভ। প্রথমবারের থেকেও যা ভয়ঙ্কর রূপ নিতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সারা দেশে যখন ব্যাপক হারে ভ্যাকসিন প্রদান চলছে তখনই প্রতিদিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। সর্বাধিক আক্রান্ত মহারাষ্ট্র। তারপরেই রয়েছে পঞ্জাব, মধ্যপ্রদেশ ও তামিলনাড়ু। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় গোটা দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ৪৬ হাজার ৯৫১ জন। যা গত বছর নভেম্বরের পর সর্বাধিক। এদিকে ৪৬ হাজারের মধ্যে মহারাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৩০ হাজার ৫৩৫ জন।

আরও পড়ুনঃ কলকাতা পুরসভার নতুন প্রশাসক হলেন খলিল আহমেদ

যা একদিনে আক্রান্তের নিরিখে সব চেয়ে বেশি। সচেতনতা না থাকায় ও করোনাকে হালকা ভাবে নেওয়ায় এই পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে বলে জানাচ্ছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন। দেশের মানুষের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেছেন “আমি সকলের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি, করোনাকে হালকা ভাবে নেবেন না। করোনা সচেতনতা মেনে চলুন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। মাস্ক পরুন ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন। এটাই কিন্তু করোনা থেকে আমাদের বাঁচাতে পারে। আর কোভিশিল্ড ও কোভ্যাকসিন রয়েছে, যা এই দ্বিতীয় ঝড় কমাতে পারে।” ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রী করোনা রুখতে সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। এদিকে চিকিৎসকরা বলছেন, দ্বিতীয় ঝড়ে করোনার উপসর্গ কম থাকতে পারে। কিন্তু ছড়াবে অনেক বেশি। তাই এক্ষেত্রে মানুষের সহযোগিতা অত্যন্ত প্রয়োজন।

যেহেতু অফিস খুলেছে, স্কুল খুলেছে এবং সকলে বাইরে বের হচ্ছেন, তাই কিছু জিনিস মেনে চলতে হবে। নিয়মাবলী নিয়ে মানুষকে সচেতন করতে নতুন নির্দেশিকাও জারি করেছে কেন্দ্র। সেখানে বলা হয়েছে সরকারি সমস্ত দফতরে ও অফিসে ফের থার্মাল গানের ব্যবস্থা করতে হবে। ঢোকার আগে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক। কারও জ্বরের উপসর্গ থাকলে, তাকে কোয়ারান্টিনে রাখার ব্যবস্থা করতে হবে। অফিসে বেশি লোকজনের আনাগোনা রুখতে হবে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। বৈঠক আলোচনা যতটা সম্ভব অনলাইনে করতে হবে। অপ্রয়োজনীয় যাত্রা বন্ধ রাখতে হবে। যতটা সম্ভব মেইলের মাধ্যমে সরকারি নথি পাঠাতে হবে। ফাইল বা হার্ড কপি পাঠানো এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। যে কোনও জিনিসের ডেলিভারি এন্ট্রি পয়েন্টে দিয়ে দিতে হবে ও যে কোনও রকমের চালান সেখান থেকেই দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

ভয়ঙ্কর রূপ নিচ্ছে সেকেন্ড ওয়েভ, করোনা রুখতে ফের নয়া নির্দেশিকা জারি কেন্দ্রের। জিম, ক্রেশ ইত্যাদি বন্ধ করে দিতে হবে। শারীরিক অসুস্থতা থাকলে তাঁদের প্রত্যেককে কাজের জায়গায় জানাতে হবে। এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রকের নির্দেশ অনুযায়ী কোয়ারান্টিনে থাকতে হবে। বেসরকারি অফিসগুলিকে আবেদন করা হচ্ছে, কোয়ারান্টিনে থাকাকালীন যেন কর্মীদের ছুটি মঞ্জুর করা হয়। সামনের সারিতে কাজ করা সকলকেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে ও বিশেষ করে সচেতন থাকতে হবে।  বয়স্ক, অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের প্রতি বাড়তি নজর রাখতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here