টলিউড অভিনেত্রী দেবলীনাকে গণধর্ষণ এবং খুনের হুমকি বিজেপি কর্মীর!

টলিউড অভিনেত্রী দেবলীনাকে গণধর্ষণ এবং খুনের হুমকি বিজেপি কর্মীর!

নজরবন্দি ব্যুরো: টলিউড অভিনেত্রী দেবলীনাকে গণধর্ষণ এবং খুনের হুমকি বিজেপি কর্মীর! টলিউড অভিনেত্রী দেবলীনা দত্ত গরুর মাংস খাওয়া নিয়ে একটি চ্যাট শোয়ে মতামত দেওয়ায় খুন আর গণধর্ষণের হুমকি পাচ্ছেন। বাদ পড়েনি তাঁর মা। তাঁকে নিয়েও চলছে বাজে মন্তব্য। এই ঘটনার সুত্র এবিপি আনন্দের একটা টক শো।

আরও পড়ুনঃ মুস্তাক আলির পর এবার রঞ্জি বা বিজয় হাজারে, ঘরোয়া ক্রিকেট নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত ভারতীয় বোর্ডের।

দেবলীনা বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষকে প্রশ্ন করার সময় গায়ক,পরিচালক অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়ের কথার সূত্র ধরে জানান, নিরামিষভোজী হলেও প্রয়োজনে তাঁর বাড়িতে গিয়ে নবমীর দিন দেবলীনা গরুর মাংস রান্না করে দিতে পারেন। অভিনেত্রী দেবলীনা দত্ত মনে করেন, খাদ্য খাদ্যাভাস এবং ধর্ম বিষয়ে তিনি ছূৎমার্গহীন। সে দিনের পর থেকেই এ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ধুন্ধুমার অশ্লীল আক্রমণ শুরু হয়ে যায়।

অভিনেতা তথাগত মুখোপাধ্যায় ফেসবুক পোস্টে লেখেন, “অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় এবং আমার স্ত্রী দেবলীনা দত্তের বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ তারা গোমাংস খেতে পারেন,রান্নাও করতে পারেন সে বিষয়ে টেলিভিশনে কেন কথা বলবেন?” একটি সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দেবলীনা বললেন,“এখন দেখছি এটাই রেওয়াজ। কোনও মহিলা অন্য স্বরে কথা বললেই তাঁকে গণধর্ষণ আর গলা কেটে দেওয়ার হুমকি দেওয়া যায়? বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, গায়ক ও অভিনেতা বাবুল সুপ্রিয় এক ইন্টারভিউতে বলেছেন তিনি কলেজ লাইফে বহূ বার বিফ বা গরুর মাংস খেয়েছেন, তা নিয়ে কিন্তু কোনও প্রশ্ন করা হয়নি যে উনি কেন গোমাংস খেলেন?

অথচ সেই বিজেপি কর্মী পেশায় উকিল তরুণজ্যোতি তিওয়ারি আমাকে এ বিষয়ে কথা বলার জন্য হুমকিই নয়,আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকিও দেন। তিনি কেমন উকিল যার পোস্টের তলায় একজন মহিলাকে তাঁর মাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করা হচ্ছে আর তিনি চুপ!” অভিনেত্রী দেবলীনা আরও বলেন, “যে বাড়িতে আমি আর তথাগত থাকি সে বাড়িতে ইদের দিন এবং সাধারণ অন্য যে কোনও দিন শুয়োর রান্না হয়েছে বা বাইরে থেকে আনানো হয়েছে। আমার মুসলিম বন্ধু ও সহকর্মীরা সানন্দে তা খেয়েছেন, কোনও আলোচনা ছাড়াই।

টলিউড অভিনেত্রী দেবলীনাকে গণধর্ষণ এবং খুনের হুমকি বিজেপি কর্মীর! কারণ কাজ বা আড্ডা দূটোর সময়েই কী খাচ্ছি মুরগি না ছাগল,গরু না শুয়োর সেটা নিয়ে আলোচনা অবান্তর। যদিও হিন্দু ধর্ম মতে শুয়োর অর্থাৎ বরাহ স্বয়ং বিষ্ণুর অবতার তবুও শুয়োরের মাংস খাওয়ার বিরোধিতা কেউ করেননি। আমরাও করিনি, কারণ আমরা খাওয়ার জন্য বাঁচি না বাঁচার জন্য খাই।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x