মানুষের প্রাপ্য যাচ্ছে নেতার ঘরে, স্বীকার করলেন প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক

মানুষের প্রাপ্য যাচ্ছে নেতার ঘরে, স্বীকার করলেন প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক
মানুষের প্রাপ্য যাচ্ছে নেতার ঘরে, স্বীকার করলেন প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক

নজরবন্দি ব্যুরো: মানুষের প্রাপ্য যাচ্ছে নেতার ঘরে, শনিবার পশ্চিম বর্ধমান জেলা কর্মী সম্মেলনে এমনই অভিযোগ তুলেছেন তৃণমূলের প্রাক্তন বিধায়ক উজ্জ্বল চট্টোপাধ্যায়। এদিন আসানসোলের পুরপ্রশাশক বোর্ডের সভাপতির সামনে প্রাক্তন কাউন্সিলরদের বিরুদ্ধে বিতর্কিত মন্তব্য করেন উজ্জ্বল।

আরও পড়ুনঃ কথা রেখেছেন মুখ্যমন্ত্রী, সেপ্টেম্বর থেকেই চালু হচ্ছে ‘দুয়ারে রেশন’-এর পাইলট প্রোজেক্ট

এবার এই মন্তব্যকে ঘিরে শুরু হল রাজনৈতিক তর্যা। সম্মেলনে উজ্জ্বল বলেন “আসানসোল পুরএলাকার বেশ কিছু প্রাক্তন কাউন্সিলর শুধু নিজ ক্ষমতাবলে জনপরিষেবাখাতে ব্য়য়িত জিনিস নিজের ঘরে ঢুকিয়ে নিচ্ছেন। চাল-ডাল, ত্রিপল সবই সাধারণ মানুষের, দুর্গতদের ঘরে না গিয়ে যাচ্ছে সেই কাউন্সিলরের ঘরে যাঁরা দুর্নীতি করে চলেছেন।” প্রাক্তন বিধায়কের এমন মন্তব্যে এবার বেশ অস্বস্তিতে পড়েছে আসানসোল পুরসভা।

12 10

জনপরিসেবা খাতে ব্যয়িত জিনিস নেতা-নেত্রীদের ঘরে ঢুকছে। এতে কার্যত বর্তমান পুর প্রশাসক বোর্ডের দিকেই যে দুর্নীতির আঙ্গুল উঠেছে তা স্পষ্ট। আসানসোল পুর বোর্ডের মেয়াদ শেষ হয়েছে প্রায় এক বছর। এখন পুর প্রশাসক বোর্ড গঠন করেই চলছে পুর নিগম। প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলরদের সেই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে খবর।

উজ্জ্বল চট্টোপাধ্যায়ের এই বক্তব্যে পুর প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান অমরনাথ চট্টোপাধ্যায় বলেছেন “উজ্জ্বলবাবু যে মন্তব্য করেছেন তা একান্তই ওঁর ব্যক্তিগত। এরসঙ্গে পুরবোর্ডের কোনও সম্পর্ক নেই। পুরবোর্ডের পক্ষ থেকে এমন কোনও মন্তব্য করা হয়নি। বিদায়ী কাউন্সিলরের মধ্যে যাঁরা বোরো অফিসের দায়িত্বে ছিলেন বা পুরপ্রশাসক বোর্ডের সদস্য় রয়েছেন তাঁদেরই কিছু কিছু দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

মানুষের প্রাপ্য যাচ্ছে নেতার ঘরে, স্বীকার করলেন প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক

আমরা এখনও সব জায়গায় জিনিস পৌঁছে দিয়ে উঠতে পারিনি। হয়ত, উজ্জ্বলবাবু এ বিষয়ে বিশেষ জানেন না। আর যদি সত্যিই এইধরনের ঘটনা ঘটে থাকে তবে সেক্ষেত্রে আমাদের নামের তালিকা দিলে আমার পরিচালনা করতে সুবিধা হবে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here