Article 243ZA: বিশেষ ধারা প্রয়োগ করে সব পুরসভায় এক সাথে নির্বাচন, EC-রাজ্যপালের বৈঠক।

বিশেষ ধারা প্রয়োগ করে সব পুরসভায় এক সাথে নির্বাচন, EC-রাজ্যপালের বৈঠক
বিশেষ ধারা প্রয়োগ করে সব পুরসভায় এক সাথে নির্বাচন, EC-রাজ্যপালের বৈঠক

নজরবন্দি ব্যুরোঃ রাজ্যের সব পৌর এলাকায় একসঙ্গে নির্বাচনের পক্ষে জোরালো সওয়াল করছিল রাজ্যের বিরোধী দলগুলো। এবার সেই দাবিকে প্রতিষ্ঠা দেওয়ার চেষ্টা করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। আজ রাজ্য নির্বাচন কমিশনারের সাথে বৈঠকে রাজ্যপাল কমিশনের বিশেষ ক্ষমতার কথা স্মরন করিয়ে দেন। প্রায় ১ ঘন্টা বৈঠক হয় দুজনের। মূলত পুরসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপট নিয়েই ছিল আজকের মিটিং।

আরও পড়ুনঃ Mahua Liquor: কর্মসংস্থান ও আয়ের উৎস হবে মদ, ‘হেরিটেজ’ তকমা পেল মহুয়া!

আজ রাজভবনে প্রায় ১ ঘণ্টা ধরে পুরসভা নির্বাচন সংক্রান্ত বিষয়গুলি নিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে কথা বলেন রাজ্য নির্বাচন কমিশনার সৌরভ দাস। নির্বাচন কমিশনারকে রাজ্যপাল সাফ জানান, কমিশন যাতে নিরপেক্ষ, স্বাধীন এবং কার্যকর ভূমিকা পালন করে। তাঁদের বিশেষ ক্ষমতার কথা স্মরন করিয়ে রাজ্যপাল বলেন, কোনভাবেই যেন নির্বাচন কমিশন নিজেদের রাজ্য সরকারের অংশ না মনে করে।

এরপরেই রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় বিশেষ ধারা প্রয়োগ করে সব পুরসভায় এক সাথে নির্বাচন করার পক্ষে জোরাল সওয়াল করেন। তিনি মনে করিয়ে দেন নির্বাচন কমিশন চাইলে ২৪৩ কে ধারা প্রয়োগ করতে পারে। যদিও নির্বাচন কমিশনার সৌরভ দাস বিষয়টি নিয়ে তেমন উৎসাহ দেখাননি। তিনি জানান একসাথে সব পুরসভায় নির্বাচন হলে টিকাকরণের গতির উপর তার প্রভাব পড়তে পারে।

বিশেষ ধারা প্রয়োগ করে সব পুরসভায় এক সাথে নির্বাচন, EC-র সাথে বৈঠক রাজ্যপালের।

বিশেষ ধারা প্রয়োগ করে সব পুরসভায় এক সাথে নির্বাচন, EC-র সাথে বৈঠক রাজ্যপালের।
বিশেষ ধারা প্রয়োগ করে সব পুরসভায় এক সাথে নির্বাচন, EC-র সাথে বৈঠক রাজ্যপালের।

এছাড়াও পর্যাপ্ত ইভিএম নেই বলে জানান নির্বাচন কমিশনার। তাঁর কথায়, রাজ্যের সব পৌর এলাকায় একসঙ্গে নির্বাচন করানোর জন্য যতগুলি ইভিএমের প্রয়োজন হবে, তত ইভিএম মেশিন রাজ্য নির্বাচন কমিশনের হাতে নেই। এদিকে, ১৯ ডিসেম্বরই হাওড়া ও কলকাতায় পুরভোট করতে চায় রাজ্য সরকার। ভোটের সপক্ষে হলফনামায় রাজ্য সরকারের জানিয়েছে, কলকাতায় ৮৫ শতাংশ দ্বিতীয় ডোজের টিকা দেওয়া সম্পূর্ণ হয়েছে। হাওড়ায় দ্বিতীয় ডোজ়র টিকা পেয়েছেন ৫৫ শতাংশ মানুষ। তাই এই দুই পুর এলাকায় ভোট করতে কোন অসুবিধা নেই।