শুধু যাওয়া আসা…শুভেন্দু ঘনিষ্ঠও অমলও অতিষ্ট বিজেপিতে! ফিরতে চান তৃণমূলে

শুধু যাওয়া আসা...শুভেন্দু ঘনিষ্ঠও অমলও অতিষ্ট বিজেপিতে! ফিরতে চান তৃণমূলে
শুধু যাওয়া আসা...শুভেন্দু ঘনিষ্ঠও অমলও অতিষ্ট বিজেপিতে! ফিরতে চান তৃণমূলে

নজরবন্দি ব্যুরোঃ শুধু যাওয়া আসা…বাংলার রাজনীতির অন্দরমহল দেখে এমনটাই বলছে ওয়াকিবহাল মহল। এ যেন এক হুজুগ দলবদলের। আর তার দ্বিতীয় ঢেউ এসেছে আবার বাংলার রাজনীতিতে। গত বছরর ডিসেম্বর নাগাদ এর প্রথম ঢেউ এসেছিল শুভেন্দু অধিকারী তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর। আচমকা একাধিক কারন দেখিয়ে বহু নেতা-মন্তড়-কর্মী দিদির হাত ছেড়ে ভরসা খুঁজে পেয়েছিলেন মোদীর দলে। অগত্যা দলত্যাগ।

আরও পড়ুনঃ ইয়াসে’র দুর্যোগে মানুষের পাশে দাঁড়াতে চায় বঙ্গ BJP, তবে দিলীপ ভয় পাচ্ছেন ‘রাজনৈতিক বাধা’র

মাঝে মাত্র কয়েকমাস অতবাহিত হয়েছে। নির্বাচন হয়েছে। বহু আস্ফালনের পরেও সেই নির্বাচনে ১০০ এর নীচেই থামতে হয়েছে বিজেপিকে, সামনে দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২০০ এর বেশি আসন ছিনিয়ে নিয়ে তৃতিয় বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন। দলবদলুরা যাঁরা ভতের টিকিট পেয়েছিলেন, তাঁরাও বেশিরভাগ গেরুয়া শিবিরের জার্সিতে পরাজিত হয়েছেন।

তার পরই শুরু হয়েছে ফের দলবদল। যাঁরা তৃণমূলে টিকিট না পেয়ে বিজেপিতে গিয়েছিলেন, কয়েকমাসেই অতিষ্ট হয়ে পদত্যাগ করছেন, কেউ কেউ দলত্যাগ করেই ক্ষমা চাইছেনশোশ্যাল মিডিয়ায় দিদির কাছেই, সোজা আবদার করছেন তাঁকে দলে ফিরিয়ে নেওয়ার, কেউ কেউ দিদির আদর্শ নিয়েই চুপ থাকছেন।

বিজেপি ছেড়েছেন দীপেন্দু বিশ্বাস, হেভিওয়েত রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় দোমজুর থেকে পরাজিত হয়ে দিদিকে সম্মান করেন বলে আপাতত চুপ আছেন। ট্যুটারে নিজের ভুল আর কষ্টের কথা বলে দলে ফিরিয়ে নেওয়ার আবদার আজনিয়েছেন মমতার একসময়ের দীর্ঘকালের সঙ্গী সোনালী গুহ। অভিযোগ করেছেন মুখ্যমন্ত্রীর নামে কুৎসা রটাতে বলেছিল বিজেপি, সরলা মুর্মু পচ্ছন্দ সই জায়গায় টিকিট না পেয়ে বিজেপিতে গিয়েছিলেন, আজ বলছেন তাঁকে ভুল বুঝিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিলো। ফিরতে চান তিনিও।

এদিকে জন্মলগ্ন থেকে তৃণমূলের সঙ্গে যুক্ত থেকে এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শে রাজনীতি করেও ২১ এর নির্বাচনে টিকিত আন পেয়ে দল ছেড়েছিলেন শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ অমল আচার্য্য। অনেকেই বলেছিলেন শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ হয়ার কারণেই টিকিট পাননি অমল।  তবে এই মুহুর্তে বিজেপির কার্যকলাপে হতাশ অমল ফিরতে চান তৃণমূলে। নারদ কান্ডে বর্ষীয়ান নেতাদের অকারন হেনস্থা মানতে পারেননি তিনি। তাই দলত্যাগ করেছেন, আবেদন করেছেন পুরান ঘরে ফেরার জন্য। যদিও এই একের পর এক দলত্যাগকে পাত্তা দিচ্ছেন না বিজেপির রাজ্য সভাপতি। সোনালি গুহ প্রসঙ্গে তিনি সাফ জানিয়েছিলেন,  নিজেদের চাহিদা নিয়ে এসেছিলেন, মেটেনি চলে যাচ্ছেন।

তবে এই ফেরাতে প্রশ্ন চিহ্ন দিয়ে রেখেছে তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব। সোনালি গুহু আবেদন করার পরেই দলের এক প্রথম সারির নেতা জানিয়েছিলেন ইচ্ছে হোল চলে গেলেন, আবার ফিরে এলেন তা হয়না, সরলা প্রসঙ্গেও অএঙ্কেও বক্তব্য ভটের আগে যেভাবে বিপাকে ফেলে গিয়েছিলেন দলকে এ নিয়ে ভাবনা দরকার। তবে ইটাহারের প্রাক্তন বিধায়ক ও উত্তর দিনাজপুরের জেলা তৃণমূল সভাপতি অমল আচার্য্যকে দলে ফেরানো নিয়ে অসুবিধে নেই জেলা কমিটির। অপেক্ষা ওপর মহলের গ্রিন সিগন্যালের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here