আজ কেন্দ্রকে শো-কজের জবাব পাঠাবেন আলাপন, সঙ্গে যাবে রাজ্যের চিঠি

আজ কেন্দ্রকে শো-কজের জবাব পাঠবেন আলাপন, সঙ্গে যাবে রাজ্যের চিঠি
আজ কেন্দ্রকে শো-কজের জবাব পাঠবেন আলাপন, সঙ্গে যাবে রাজ্যের চিঠি

নজরবন্দি ব্যুরোঃ আজ কেন্দ্রকে শো-কজের জবাব পাঠবেন আলাপন, তিন দিনের মাথায় উত্তর জানতে চেয়ে নোটিস পাঠিয়েছিল কেন্দ্র সরকার। তার নিয়ম অনুযায়ী আজকের মধ্যে জবাব দিতে হতো রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যসচিবকে। সূত্রের খবর নিজের দিকের আঁটঘাট করে জবাব লিখে প্রস্তুত আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুনঃ শুভেন্দুকে মানবেন না বিরোধী দলনেতা পদে, ইস্তফা দিতে প্রস্তুত BJP-র ৩৪ বিধায়ক

গত কয়েকদিন ধরে রাজনীতির কেন্দ্রে রয়েছেন বাংলার প্রাক্তন মুখ্যসচিব। ইয়াস বিপর্যয়ের পর  দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রাজ্যে আসেন এবং বৈঠক করেন কলাইকুন্ডায়। কিন্তু সেই বৈঠকে উপস্থিত থাকেন নি মুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্যের মুখসচিব। রাজ্যের ক্ষয়ক্ষতির রিপোর্ট দিয়েই পাড়ি দেন অন্য বিপর্যস্ত এলাকা পরিদর্শনে।

সেই রাতেই দিল্লি বদলির নোটিস আসে আলাপনের নামে। তার পরেও রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যসচিব দিল্লি নর্থ ব্লকের পরিবর্তে যান নবান্নতে। ইস্তফা দেন মুখ্যসচিব পদ থেকে এবং কয়েকঘন্টা পরেই তাঁকে নিয়োগ করা হয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্য উপদেষ্টা হিসেবে। অনেকেই ভেবেছিলেন এতে বন্ধ হবে এই ইশু। তবে তার পরেও কেন্দ্রের তরফ থেকে নোটিস আসে, এবং আইএএস রুল বুকের পরিবর্তে প্রাক্তন আমলাকে শো-কজ করা হয়ে বিপর্যয় মোকাবিলা আইন ২০০৫ এর ভিত্তিতে।

সেখানে স্পস্ট বলা হয়েছে রাজ্যের প্রধান্মন্ত্রীর বৈঠকে উপস্থিত না থেকে শৃঙ্খলা ভঙ্গ এবং আইন অমান্য করেছেন তৎকালীন মুখ্যসচিব। তবে প্রথম দিনেই আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন ঠিক সময়ে কেন্দ্রের কাছে তাঁর জবাব পৌঁছে যাবে।  আইনি পরামর্শও নিয়েছেন তিনি। তার পরেই আজ দিল্লি যাচ্ছে তাঁর জবাব।

আজ কেন্দ্রকে শো-কজের জবাব পাঠাবেন আলাপন,  সূত্রের খবর আলাপনের জবাবের পাশাপাশি আজ কেন্দ্রের কাছে যাবে রাজ্যের এক চিঠিও। সূত্রের খবর সমগ্র ঘটনা কেন্দ্রীভূত হচ্ছে যে বৈঠক নিয়ে তার প্রেক্ষিতে যুক্তি সাজিয়েছে  রাজ্য। রাজ্যের বক্তব্য বৈঠকটি যে বিপর্যয় ব্যবস্থাপনা আইনের আওতায় ডাকা হচ্ছে এবং প্রধানমন্ত্রী যে এনডিএমএ চেয়ারম্যান হিসেবে ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকছেন তা  উল্লেখ ছিল না আমন্ত্রণে। সুতরাং ওই ভিত্তিতে নোটিসা পাঠানো যায় না।

আজকের জোড়া পত্র যাওয়ার পর কেন্দ্র কী অবস্থান নেয় তার দিকে তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল। এদিকে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের ইস্যুতে প্রথম থেকেই সরব হয়েছেন রাজ্যের বাকি রাজনৈতিক দল গুলি, এমনকি প্রাক্তন আমলারাও একাধিক বার সরব হয়েছেন এর প্রতিবাদে। তাঁরা এক বাক্যে স্বীকার করেছেন রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ছাড়া কিছুই করেছে না মোদি সরকার। ট্যুইটারে ট্রেন্ড হয়েছে মোদি আইপিএস আইএএস দের বিরোধী বলেও।

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here