৩২ হাজার চাকরি বাতিল, কার্যত বহাল সিঙ্গেল বেঞ্চের রায়, শুধুমাত্র পুরো বেতন পাবেন শিক্ষকরা!
৩২ হাজার চাকরি বাতিল, কার্যত বহাল সিঙ্গেল বেঞ্চের রায়, শুধুমাত্র পুরো বেতন পাবেন শিক্ষকরা!

নজরবন্দি ব্যুরো: গত শুক্রবার ৩৬ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকদের চাকরি বাতিলের নির্দেশ দেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। পরে সেই রায় সংশোধন করে সংখ্যাটি ৩২ হাজার অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকের চাকরি বাতিল করে নজিরবিহীন নির্দেশ দেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। এবার এই বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের ৩২০০০ প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরি বাতিলের নজিরবিহীন রায়ের ওপরেরই অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ দিল কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ।

আরও পড়ুন: Abhishek Banerjee: সম্ভব নয়! প্রধান বিচারপতির বেঞ্চও গ্রহণ হল না অভিষেকের দ্রুত শুনানির আবেদন

শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সুব্রত তালুকদার এবং বিচারপতি সুপ্রতিম ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ নির্দেশ দেয় এই মামলায়। বেঞ্চের নির্দেশ অনুযায়ী, ২০১৬ এর নিয়োগ প্রক্রিয়ায় যারা অংশগ্রহণ করেছিল অর্থাৎ ইন্টারভিউ দিয়েছিল। তাঁরা পুনরায় ইন্টারভিউ দেবে এবং যারা চাকরি করছে তাঁরা ইন্টারভিউের পর কাট অফে না আসলে বাতিল হবে। সেই স্থানে একজন যোগ্য বঞ্চিত চাকরি পাবে।

৩২ হাজার চাকরি বাতিলের রায়ে অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ, জানিয়েছে ডিভিশন বেঞ্চ
৩২ হাজার চাকরি বাতিল, কার্যত বহাল সিঙ্গেল বেঞ্চের রায়, শুধুমাত্র পুরো বেতন পাবেন শিক্ষকরা!

বেতন পুরটাই পাবেন (প্যারটিচারের মত বেতন পাবে না)। সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এই কেস আবার ডিভিশন বেঞ্চে উঠবে। তিনমাসের মধ্যে বোর্ডকে ইন্টারভিউ নিতে হবে। শুধুমাত্র নন-ট্রেন্ডদের জন্য। সিঙ্গেল বেঞ্চের রায় বহাল থাকছে শুধুমাত্র স্যালারিতে স্টে পড়ল। বেতন পুরোটাই পাবেন চাকরি হারা শিক্ষকরা। সুতরাং ডিভিশনের বেঞ্চের এই রায়ের ফলে চাকরিপ্রার্থীদের চাকরি বাতিল না হলেও, নতুন নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে হবে এই ৩২ হাজার প্রাথমিকের শিক্ষককে।

৩২ হাজার চাকরি বাতিল, কার্যত বহাল সিঙ্গেল বেঞ্চের রায়, শুধুমাত্র পুরো বেতন পাবেন শিক্ষকরা!

TET: ৩২ হাজার চাকরি বাতিল, কার্যত বহাল সিঙ্গেল বেঞ্চের রায়, শুধুমাত্র পুরো বেতন পাবেন শিক্ষকরা!

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের টেট পরীক্ষায় নিয়োগ পাওয়া ওই শিক্ষকদের আগামী চার মাসের মধ্যে চাকরি ছাড়তে হবে, এমনটাই জানিয়ে ৩২ হাজার অপ্রশিক্ষিত শিক্ষকের চাকরি বাতিলের নির্দেশ দেন বিচারপতি। এর আগে কখনই নিয়োগ দুর্নীতিতে এত বিপুল পরিমাণ বাতিল হয়নি। যার জেরে নতুন করে শোরগোল ছড়িয়েছিল। পাশাপাশি বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় জানান, চাকরিচ্যুত শিক্ষকরা আপাতত ৪ মাস তাঁদের স্কুলে যেতে পারবেন। তবে পার্শ্বশিক্ষকদের বেতনকাঠামো অনুসরণ করে তাঁদের বেতন দেওয়া হবে।